মানবতার অনন্য প্রমাণ


নিজস্ব প্রতিনিধি:সমাজকল্যান এর ভাবনা নিয়ে সদ্য গড়ে ওঠা একটি সমাজ কল্যাণমূলক সংস্থার সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা এবং সবাইকে নিয়ে কাজ করার নীতি আমাদেরকে সত্যিই অবাক করে।
শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য যাদের মূল লক্ষ্য এবং লক্ষ্যে স্থির।
আল আমিন মিশনে WBCS কোচিং নেওয়া এক ছাত্র রবিউল ইসলামের চিকিৎসার জন্য ফান্ড কালেকশনের ব্যাপারে অন্যান্য সংস্থার সাথে নিয়ে মানবতা মানবতার পরিচয় রাখল।


এক প্রশ্ন রাখা হয় মানবতার সাধারণ সম্পাদক কে,যে আপনারা সাহায্যের বার্তা পৌছাচ্ছেন— অথচ নিজেদের সংস্হার নাম লিখছেন না কেন?
উত্তরে সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার আলি পিয়াদা যা বললেন তা একটা উদাহরণ হওয়ার মতো । ‘আমাদের উদ্দেশ্য সুনাম অর্জন করা নয়, রোগীর সুস্থ কামনা এবং তার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহ করা।সে উদ্দেশ্যের সাথে নিজের সংস্থার প্রকাশ করে সাহায্যের আবেদন করলে সবাইকে সাথে নাও পেতে পারি ও না পাওয়ার সম্মাননা বেশি ‘।সবার হার্দিক সাহায্য রবিউলের বাবা-মা ও পরিবারকে সাহস যুগিয়েছে কলকাতার বাইরে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়ার। গত শনিবার তারা রওনা দিয়েছেন ব্যাঙ্গালোরের উদ্দেশ্যে। রবিউলের দিদির কথায় , ” আমরা একটা অসহায় ছিলাম যে মনে হচ্ছিল কেউ নেই, আমাদের মানবতার যোগাযোগের পর মনে হচ্ছে সবাই আছে আমাদের পাশে আমাদের সাথে।” রবিউল সুস্থ হয়ে সবার মুখে হাসি ফেরাক এই কামনা করি।


এবিষয়ে মানবতার তরফে সমস্ত সমব্যাথী মানুষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান মানবতার সাধারণ সম্পাদক। তাঁর কথায় এভাবেই যদি আমরা সবাই মানবিক মন নিয়ে আগিয়ে আসতে পারি তাহলে সুস্থ ও সুন্দর একটা সমাজ গড়ে তুলতে পারবো।